ভ্রাতৃত্ববোধ ছাত্রলীগ দুই নেতা রিয়াদ ও বিন্দু

1,314

ভোরের বাংলাদেশ২৪ডটকম :বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতির সংস্কৃতি ও কৃস্টি মনে প্রাণে ধারণ করে তিনি হয়েছিলেন বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদী নেতা। তাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলো স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু লালিত স্বপ্ন বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য একেএম শামীম ওসমান এর হাতে হাত রেখে তরুণ প্রজন্মের প্রিয় মুখ অয়ন ওসমান নেতৃত্বে এগিয়ে চলছে নারায়ণগঞ্জ মহানগর তথা সরকারি তোলরাম কলেজ শাখা ছাত্রলীগ। বাঙালির অস্তিত্ব রক্ষা করার জন্য বঙ্গবন্ধুর অগ্রসেনানী ছাত্র সংগঠন ৪ জানুয়ারি ১৯৪৮ সালে ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন সেই আদর্শ নিয়ে এগিয়ে চলছে বঙ্গবন্ধু আদর্শ সন্তান নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ ও সাধারণ সম্পাদক হাসনাত রহমান বিন্দু ও আসাদুজ্জামান ।

তাঁদের লক্ষ ও উদ্দেশ্যে হলো, আমরা যারা ছাত্রলীগের কর্মী ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক ছাত্রলীগের পতাকাতলে ছিলাম তারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের অবিছেদ্দ্য অংশ হিসেবে গর্বের অংশীদার হয়ে বেঁচে থাকার অধিকার আদায় করেছি। বাংলাদেশের লাল সবুজের পতাকাকে মাথার ওপর সমুন্নত রেখে বঙ্গবন্ধুর ভাবশিষ্য হিসেবে দেশ প্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে কাজ করছি এবং আগামী একাদশ জাতীয় নির্বাচনে কাজ করে যাবো, আমাদের লক্ষ্য উন্নয়ন এর ধারা অব্যহত রাখার জন্যে পুনরায় আওয়ামীলীগ কে জয়ী করা।

ছাত্রলীগ এর আদর্শ সম্পর্কে হাবিবুর রহমান রিয়াদ বলেন, ছাত্রলীগের আদর্শের কর্মীদের লক্ষ্যবস্তু থেকে কেউ কখনো বিচ্যুত করতে পারবে না। যারা সেই আদর্শ থেকে বিচ্যুত হয়ে রজনৈতিক হীন স্বার্থে জড়িয়েছে তারা আজ ইতিহাস থেকেও ঝরে পড়েছে। ছাত্রলীগ হলো একটি আদর্শের পতাকা। সেই পাতাকা তলে থেকেই দেশের অগ্রগতিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে একমাত্র ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরাই।

হাসনাত রহমান বিন্দু বলেন, ১৯৭৫ পরবর্তী বঙ্গবন্ধুবিহীন বাংলাদেশের রাজনৈতিক ভাগ্যাকাশে যে কালো মেঘ গ্রাস করেছিল সেই মেঘ সরাতে প্রত্যাশার সূর্য হাতে ১৯৮১ সালের ১৭ মে প্রত্যাবর্তন করেন দেশরত্ন শেখ হাসিনা। সেদিন শেখ হাসিনার পাশে ভ্যানগার্ডের ভূমিকায় অবতীর্ন হয়েছিল বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। যেমনটি বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে তত্কালীন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মুক্তিযুদ্ধেও ঝাঁপিয়ে পড়েছিল এবং স্বাধীনতার লাল সূর্য্যটিও ছিনিয়ে এনেছিল।
তাই আজকের ছাত্রলীগ ও প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ২০২১ ও ২০৪১ সালের রূপকল্প বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের ও উন্নত দেশে পরিণত করার জন্য ছাত্রলীগের অগ্রসেনানী ভূমিকা পালন করতে পারলেই আমাদের এই প্রত্যাশা পূরণ হবে।

ছাত্রলীগ এর ইতিহাস সম্পর্কে সরকারি তোলারাম কলেজের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ঐতিহাসিক ভূমিকা, সফল আন্দোলন ও সংগ্রামের অগ্রণী ভূমিকা পালন করে বাংলাদেশের ইতিহাসে মাইলফলক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত। বঙ্গবন্ধুর হাতে প্রতিষ্ঠিত এ ছাত্রলীগ অল্প সময়ের ব্যবধানে মানুষের মনের মধ্যে আস্থা অর্জন করে নেয়। বিশ্বে এমন কোনো ছাত্র সংগঠন নেই যে ছাত্রলীগের সঙ্গে অন্য কোনো দেশের ছাত্র সংগঠনের সঙ্গে তুলনা করা যায়। স্বাধীনতার রূপকল্পক মহানায়ককে সামনে রেখে মুক্তিযুদ্ধে অন্যতম সংগঠক হিসেবে যে সাফল্যের ভূমিকা রেখেছে তা বিশ্বের ইতিহাসে বিরল।
বঙ্গবন্ধুর প্রতিষ্ঠিত ছাত্রলীগ জনগণের বন্ধু হিসেবে আস্থা অর্জন করে দে। ছাত্র-জনতা-কৃষক-শ্রমিকের ইস্পাত কঠিন ঐক্য গড়ে উঠবে। জঙ্গিবাদ সন্ত্রাসবাদ ও সাম্প্রদায়িকতা এ দেশ থেকে নির্মূল হবে কৃষক-শ্রমিক-জনতা তা বিশ্বাস নিয়ে আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়তে জননেত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়নশীল বাংলাদেশ গড়ার ধারাবাহিকতায় ভিশন ২০৪১ বাস্তবায়ন লক্ষে আমরা ছাত্রলীগ কাজ করে যাবো।

Comments are closed.