করোনাভাইরাসে দক্ষিণ কোরিয়ার অবস্থা চীনের চেয়েও ভয়াবহ

6

ডেস্ক নিউজ:
দক্ষিণ কোরিয়ায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশঃ বেড়েই চলেছে। অবস্থা অনেকটা এমন চীনের চেয়েও ভয়াবহভাবে করোনা ছড়াচ্ছে দেশটিতে। ডিসেম্বরের শেষ নাগাদ চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে গোটা দেশে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়ে নভেল করোনা। চীনের সীমানা পেরিয়ে বর্তমানে বিশ্বের ৫০টি দেশে থাবা বিস্তার করেছে করোনা।

চীনের মূল ভূখণ্ডে শুক্রবার করোনায় আক্রান্ত আরও ৪৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। ফলে দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ২৮৩৫ জন। ওইদিন দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৩২৭ জন। ফলে দেশটিতে এই ভাইরাসে মোট আক্রান্ত হলেন ৭৯২৫১ জন। তবে সেখানে গত কয়েকদিন ধরে করোনার প্রকোপ ক্রমাগত কমছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

তবে চীনে করোনা কিছুটা নিয়ন্ত্রণ করা গেলেও দক্ষিণ কোরিয়ায় ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। আতঙ্ক বাড়ছে ইরান ও ইতালিসহ অন্য দেশগুলোতেও। বিশ্বের আরও অন্তত ৫৪টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। চীনের মূল ভূখণ্ডের বাইরে বিভিন্ন দেশে মারা গেছেন কমপক্ষে ৮৭ জন। এর ফলে বিশ্বজুড়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ২৯২২ জনে। আর করোনায় মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৮৩ হাজারের বেশি মানুষ।

দক্ষিণ কোরিয়ায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার ৯৩১ জন। দেশটিতে মারা গেছে মোট ১৩ জন। রোগীর সংখ্যা বিচারে এর পরে রয়েছে- ইতালি (৮৮৯), ইরান (৩৮৮) ও জাপান (২৩৪)।

ইতালিতে নতুন করে ২১ রোগী শনাক্ত হয়েছে। লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে দুই ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে খবর মিলেছে। এ অবস্থায় বলা যায়, এন্টার্কটিকা বাদে পৃথিবীর সব মহাদেশেই এই ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটেছে। ফলে বিশ্বের মোট ৮৫ হাজার ২০৭ জন এতে আক্রান্ত হয়েছেন।

চীনের বাইরে করোনায় সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে ইরানে, ৩৪ জন। সরকারি তরফে এই সংখ্যা দেওয়া হলেও ইরানে মৃতের সংখ্যা তার কয়েকগুণ বেশি বলে দাবি করেছে বিবিসি। স্থানীয় স্বাস্থ্যকর্মীদের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যমটি বলছে, সেখানে করেনায় এ পর্যন্ত ২১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। তবে এই তথ্য প্রত্যাখ্যান করেছে তেহরান সরকার।

ইতালিতে এ পর্যন্ত ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে নভেল করোনাভাইরাসে। জাপানে পাঁচজন, হংকংয়ে দুজন, ফ্রান্সে দুজনের মৃত্যু হয়েছে এই রোগে।

চীনের উহানে দুই মাস আগে সংক্রমণ দেখা দেওয়ার পর নভেল করোনাভাইরাস এখন বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা তৈরি হওয়ায় সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

তাই যতই দিন যাচ্ছে করোনা আতঙ্ক ততই বাড়ছে। এখনও এই ভাইরাস মোকাবিলা করতে পারছে না বিশ্ববাসী। এ পরিস্থিতি ‘বৈশ্বিক মহামারি’আকার ধারণ করতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)। ইতোমধ্যে এটিকে ‘সর্বোচ্চ ঝুঁকি’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে হু।

সূত্র: আল জাজিরা

Comments are closed.