বাউল সম্রাট শাহ আব্দুল করিমের প্রয়াণের দশ বছর

7

বিনোদন ডেস্ক:
বাউল গানের সম্রাট বলা হয় শাহ আব্দুল করিমকে। বাংলা লোক সংগীতকে তিনি নিজের ভেতর ধারণ করে গান লিখতেন, গাইতেন। বাউল গানকে তিনি ছড়িয়ে দিয়েছেন বিশ্বব্যাপী। ২০০৯ সালের আজকের এই দিনে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান এই বাউল সম্রাট। দেখতে দেখতেই পার হয়ে গেল এই সম্রাটকে হারানোর দশ বছর।

শাহ আব্দুল করিম তার গানে ‘দেহতত্ত্ব’র কথা বেশি বলতেন। সেসব গানের মূল বিষয়বস্তু ছিল কামসাধনা, দেহসাধনার নানা বিষয়। এর বাইরেও তিনি তার গানে গণ মানুষকে সন্ধান করতেন। তিনি গান লিখতেন জীবনবোধের জায়গা থেকে। জীবন সম্পর্কে তার ভাবনাগুলোকে নিয়ে গান বাঁধতেন। যে গান শ্রোতাদের ভাবনার জগতে নিয়ে যায়। যে জগত জীবনের যে জগত বাস্তবতার।

জীবনভর বাংলার অসাম্প্রদায়িক সংস্কৃতির প্রতি অত্যন্ত আস্থাশীল ছিলেন তিনি। তার একাধিক গানে এর প্রমাণ মিলেছে। যদিও সাম্প্রদায়িক চেতনার কারনে তাকে ‘নাস্তিক’ বলে মনে করতেন অনেকে।

১৯১৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি সুনামগঞ্জের দিরাই থানার ধলআশ্রম গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন বাউল সংগীতের এই মরমী সাধক । ছোটবেলা থেকেই নিত্য অভাবের সঙ্গে লড়াই করতে হয়েছে। তবে সেই অভাবের ভেতর থেকেই তিনি সংগীত সাধনা শুরু করেন। কিশোর বয়স থেকে গণসংগীতের প্রতি তার প্রবল আগ্রহ তৈরি হয়। সেই আগ্রহ তাকে গান লেখায় উদ্বুদ্ধ করে। সেসব গানে তিনি নিজের জীবনের কঠিন বাস্তবতার কথা তুলে ধরতেন। যদিও তিনি লেখাপড়া জানতেন না। স্বশিক্ষায় শিক্ষিত এই সাধক গ্রামের নৈশো বিদ্যালয়ে অল্প কিছুদিন পড়ালেখা করেছেন।

জীবদ্দশায় শাহ আব্দুল করিম পাঁচ শতাধিক গান লিখেছেন এবং সুরারোপ করেছেন। তিনি তার কাজের স্বীকৃতি স্বরুপ ২০০১ সালে রাষ্ট্রীয় সম্মাননা একুশে পদক লাভ করেন। এছাড়া পেয়েছেন আরও অসংখ্য পুরস্কার।

Comments are closed.