আত্রাইবাসীর প্রাণের দাবি ঢাকাগামী ট্রেন থামতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন

3

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি : মানতে হবে মানতে হবে, আত্রাইবাসীর প্রাণের দাবি মানতে হবে, ঢাকার ট্রেন থামতে হবে। এমনই স্লোগানে স্লোগানে বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও রেললাইন অবরোধ করে ট্রেন দাঁড় করানোর মত বিভিন্ন কর্মসূচীতে মুখোর এখন আত্রাইয়ের আহসানগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন।

গত সাতদিন ধরে ঢাকাগামী আন্তঃনগর ট্রেনের স্টপেজের দাবিতে নওগাঁর আত্রাইয়ের আহসানগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনে প্রতিদিন বেলা সাড়ে ১২ টা থেকে দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেন
আসা পর্যন্ত বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও রেললাইন অবরোধ করে ট্রেন দাঁড় করানোর মত বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করছে উপজেলার সর্ব স্তরের জনগণ।

এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার দুপুরে আত্রাই রেলওয়ে স্টেশনে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন
করা হয়। এ সময় ঢাকাগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেন আসলে আন্দোলনকারীদের অবরোধের মুখে চালক ট্রেন থামিয়ে দেন। প্রায় ১০ মিটিন বিরতির পর আবার ট্রেন ছেড়ে চলে যায়।

এদিকে আহসানগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনে ঢাকাগামী আন্ত:নগর ট্রেনের স্টপেজের দাবি কার্যকর না হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন কর্মসূচি পালন করার ঘোষণা দেন আন্দোলনকারীরা।

এতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন আত্রাই উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ এবাদুর রহমান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ বেগম।

জানা যায়, নওগাঁ জেলার বৃহত আত্রাইয়ের আহসানগঞ্জ ষ্টেশনের উপর দিয়ে প্রতিদিন ঢাকাগামী ৫জোড়া আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করলেও মাত্র একটি ছাড়া ঢাকাগামী অন্য কোন ট্রেনের স্টপেজ এখানে নেই। ফলে ঢাকাগামী যাত্রীদের যারপর নেই দুর্ভোগের

শিকার হতে হয়। ঢাকাগামী আন্তঃনগর ট্রেনের মধ্যে কেবলমাত্র নীলসাগর এক্সপ্রেসের স্টপেজ এ ষ্টেশনে রয়েছে। তাও আবার আসন সংখ্যা বরাদ্দ রয়েছে মাত্র ৪৬ টি। অথচ আত্রাই থেকে প্রতিদিন ঢাকা যাতায়াত করেন প্রায় ২শতাধিক যাত্রী। ফলে সীমিত সংখ্যক আসনের জন্য হিমসিম খেতে হয় ষ্টেশন কর্তৃপক্ষকেও। এদিকে নীলসাগর এক্সপ্রেস ছাড়াও আত্রাইয়ের উপর দিয়ে প্রতিদিন দ্রæতযান এক্সপ্রেস, রংপুর এক্সপ্রেস, লালমনি
এক্সপ্রেস এবং একতা এক্সপ্রেস নামে আরও ৪টি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করে। সম্প্রতি যোগ হয়েছে পঞ্চগড় এক্সপ্রেস নামে আরও একটি আন্তঃনগর ট্রেন। অথচ এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি সত্বেও এসব আন্তঃনগর ট্রেনের স্টপেজ কার্যকর না হওয়ায় একদিকে যাত্রীরা হচ্ছেন দুর্ভোগের শিকার অন্যদিকে সরকার বঞ্চিত হচ্ছে মোটা অংকের রাজস্ব আয় থেকে। এদিকে আত্রাইয়ে আন্তঃনগর ট্রেনের বিরতির দাবিতে গত ২০১৬ সালেও এমন আন্দোলন করেছিলেন এলাকাবাসী। মাসাধিককাল আন্দোলনের পরও দাবি পূরণ না হওয়ায় দিন।

দিনে আন্দোলনে ভাটা পড়ে যায়। একই দাবিতে আবারও সোচ্চার হয়েছেন এলাকাবাসী। দাবি আদায়ের জন্য পালিত হচ্ছে বিভিন্ন কর্মসূচী।

এ ব্যাপারে মোল্লা আজাদ মেমোরিয়াল বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারি অধ্যাপক মোল্লা মোহাম্মদ মতিউর রহমান বলেন, ঢাকাগামী আন্ত:নগর ট্রেনের স্টপেজ সরকারের কাছে আমাদের প্রাণের দাবি। আমরা আন্তঃনগর ট্রেনের বিরতির দাবিতে গত ২০১৬ সালের
সেপ্টেম্বর মাসেও এমন আন্দোলন করেছিলাম। রাজশাহী রেলওয়ের ডিজি ও জিএম বরাবর  স্থানীয় এমপি মহাদয়ের ডিও লেটার, শত শত সাধারণ জনগণের স্বাক্ষরীত দরখাস্ত প্রদান করি এবং তারা আশ্বাসও দেয়। কিন্তু আজও তা বাস্তবায়ন হয়নি এ ব্যাপারে আত্রাই উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ এবাদুর রহমান বলেন, দ্রুত আহসানগঞ্জ ষ্টেশনে ঢাকাগামী আন্ত:নগর ট্রেনটি যাত্রা বিরতি ঘোষনা না করা হলে।
আগামীতে অবরোধসহ কঠিন কর্মসূচির ঘোষনা করা হবে। এছাড়াও এই স্টেশনে ঢাকাগামী আন্ত:নগর ট্রেনের আসন সংখ্যা বৃদ্ধিসহ স্টেশনে যাত্রী সেবার মানবৃদ্ধি করার লক্ষ্যে সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন তিনি।এ ব্যাপারে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ বেগম বলেন, বর্তমানে এ ষ্টেশনে প্রতি মাসে লাখ লাখ টাকা আয় হয়। ঢাকাগামী অন্যান্য ট্রেনের এবং খুলনাগামী আন্তঃনগর সীমান্ত এক্সপ্রেসের স্টপেজ কার্যকর হলে রাজস্ব আয় অনেক গুণে বেড়ে যাবে। যেখানে সরকারের রাজস্ব বাড়বে এবং এলাকাবাসীর উপকার হবে। সেখানে এ ট্রেনগুলোর স্টপেজ দিতে আপত্তি কোথায়।

Comments are closed.