রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা সুলতান প্রাং

45

শিহাব আহম্মেদ-স্টাফ রিপোর্টারঃ
১৯৭১ সালের মার্চ মাস থেকে শুরু হওয়া মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করে পাক হানাদার বাহীনীর কাছে হার না মেনে ৯ মাস যুদ্ধ করে শত্রুদের পরাজিত করে প্রিয় মাতৃভূমিকে স্বাধীন করে রেখে যেতে পারলেও শেষ পর্যন্ত স্বাধীনতার ঠিক ৪৯ বছরে এই মার্চেই মৃত্যুর কাছে হার মানলেন সুজানগরের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বিশিষ্ট সমাজ সেবক সুলতান মাহমুদ প্রাং(৬৮)।

তিনি রবিবার (২৯ মার্চ) দিবাগত রাত ২.৩০ মিনিটের দিকে তার নিজ বাড়ী সুজানগর পৌরসভার ভবানীপুরে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করেন (ইন্নাল্লিহে………রাজেউন)।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭০ বছর। তিনি স্ত্রী, ১ ছেলে সুজানগর মহিলা ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক জাহিদ হাসান রোজ, ১ মেয়ে ভবানীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষিকা শিউলি আক্তার, আত্মীয়স্বজন সহ বহু গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

এদিকে তার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। এবং তাকে এক নজর দেখার জন্য ভিড় জমায় অসংখ্য মানুষ। এদিনই দুপুর ২ টায় সুজানগর কাঁচারীপাড়া স্টেডিয়াম মাঠে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহীনুজ্জামান শাহীন, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) উম্মে তাবাচছুম, থানা অফিসার ইনচার্জ বদরুদ্দোজা, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের পক্ষে আব্দুল হাই ও তোফাজ্জল হোসেন উপস্থিত থেকে তার কফিনে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এবং জানাজা নামাজের আগে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।

বক্তারা স্মৃতিচারণ ছাড়াও তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।পরে স্থানীয় তারাবাড়ীয়া কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হয়।

প্রসঙ্গত: জীবিত থাকাকালীন বীর মুক্তিযোদ্ধা সুলতান প্রাং মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করে দেশকে স্বাধীন করার পর সুজানগর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের কমান্ডার, ভবানীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও ভবানীপুর মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করার পাশাপাশি সমাজসেবা মূলক কাজে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছিলেন। এবং সুজানগর শহীদ দুলাল পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য তিনি।

Comments are closed.