কাল বৈশাখী ঝড়ে তিনটি ট্রলার ডুবি, অর্ধশতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বসত্ম 

23

রাঙ্গাবালি(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি ঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালিতে কাল বৈশাখী ঝড়ে এতিমখানা মাদ্রাসা, দোকানঘরসহ অর্ধশতাধিক কাঁচা ও টিনশেডের ঘর বাড়ি বিধ্বসত্ম হয়েছে। এছাড়াও ঝড়ের কবলে পড়ে তিনটি মাছ ধরা ট্রলার ডুবির সংবাদ পাওয়া গেছে। সোমবার বিকাল পাঁচটা থেকে ছয়টা পর্যনত্ম এ ঝড়ো হাওয়ায় উপজেলার কাউখালী গ্রামের বেড়িবাধের বাইরের প্রায় পয়ত্রিশটি বসত ঘর, সাতটি দোকানঘরসহ কাউখালী নূরানী হাফজিয়া মাদ্রাসা ও লিলস্নাহ বোর্ডিং বিধ্বসত্ম হয়। এদিকে আগুনমুখা নদীতে মাছ ধরার সময় আকস্মিক ঝড়ের কবলে পড়ে ছোট বাইজদার নাচ্ছু প্যাদা, কাউখালীর হোসেন ও চর ইমারসন গ্রামের ইরম্নন মিস্ত্রির তিনটি ট্রলার ডুবে যায়। ডুবে যাওয়া ট্রলার থেকে সকল মাঝি ও জেলে উদ্ধার হয়েছে।
কাউখালি গ্রামের কৃষক আবু সালেহ জানান, বিক্রি করতে না পারায় বেশ কিছু তরমুজ আগেই পচে গেছে। আর আজ ঝড়ে বসতঘরসহ সবই শেষ হয়ে গেল। কাউখালি গ্রামের আরেক কৃষক আবুল কালাম জানান, দশ বিঘা জমিতে তরমুজ দিয়েছি। কয়েকদিন আগে বৃষ্টিতে সামন্য ড়্গতি হয়েছিল। আজ ঝড়ে পুরো ড়্গেতই শেষ। কোড়ালিয়া মৎস্য আড়তদার মালিক মাহামুদ হাসান জানান, তিনটি ট্রলার ডুবে গেছে। পাশে থাকা অন্য ট্রলার জেলে ও মাঝিদের উদ্ধার করেছে।
রাঙ্গাবালি উপজেলা সহকারী কৃষি কর্মকর্তা জুয়েল সিকদার জানান, কৃষকদের ড়্গয়ড়্গতির পরিমান নিরম্নপন করা হচ্ছে।
রাঙ্গাবালি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাশফাকুর রহমান জানান, প্রকৃত ড়্গয়ড়্গতি নিরূপনের কাজ চলছে। ড়্গতিগ্রস’দের সহযোহিতা করা হবে।

Comments are closed.