গার্মেন্টস শ্রমিক অভ্যূত্থান দিবস উপলক্ষে ২৭ ধারার অপপ্রয়োগ বন্ধ কর

1

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:গার্মেন্টস শ্রমিক অভ্যূত্থান দিবস উপলক্ষে সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার উদ্যোগে আজ বিকাল ৩ টায় নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে শ্রমিক সমাবেশ ও শহরে মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি আবু নাঈম খান বিপ্লবের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শ্রমিক নেতা আহসান হাবিব বুলবুল, বাসদ নারায়ণগঞ্জ জেলার সমন্বয়ক নিখিল দাস, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি সেলিম মাহমুদ, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম শরীফ, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন সোহাগ সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সহ-সভাপতি এম এ মিল্টন।

আহসান হাবিব বুলবুল বলেন, ২০০৩ সালে পঞ্চবটি বিসিকে পেনট্যাক্স ড্রেস লিঃ এর শ্রমিকরা ৮ ঘণ্টা কর্মদিবসসহ ১৮ দফা দাবিতে আন্দোলন গড়ে তুলেছিল। ৩ নভেম্বর শ্রমিকরা কারখানার সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালনকালে মালিক পুলিশ দিয়ে আন্দোলন দমন করার চেষ্টা করে। পুলিশ দমন-পীড়নের এক পর্যায়ে গুলি চালালে পেনট্যাক্স গার্মেন্টস শ্রমিক আমজাদ হোসেন কামাল নিহত হয় এবং ২শতাধিক শ্রমিক আহত হয়। গুলি চালিয়ে আন্দোলন দমন করাতো যায়নি বরং এ আন্দোলন গোটা বিসিক তথা সারা নারায়ণগঞ্জের আন্দোলনে পরিনত হয়। শ্রমিক আন্দোলনের তীব্রতায় ৩, ৪ ও ৫ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ অচল হয়ে থাকে। অবশেষে ৬ নভেম্বর বিকেএমইএ অফিসে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক হয় এবং মালিক পক্ষ গার্মেন্টসে আট ঘণ্টা কাজ, ওভার টাইমে দ্বিগুন মজুরি ও দুই ঈদে দুই বোনাসের দাবি মেনে নেয় এবং চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এরপর থেকে ৩ নভেম্বর গার্মেন্টস শ্রমিক অভ্যূত্থান দিবস হিসাবে পালিত হয়।

তিনি বলেন, এখনও অনেক কারখানায় এ চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়ন হয়নি। আমাদের দেশে শ্রম আইন আছে কিন্তু এর সুফল শ্রমিকরা ভোগ করতে পারে না। মালিকরা শ্রম আইনের ২৩, ২৬ ও ২৭ ধারার অপপ্রয়োগ করে শ্রমিকদের বঞ্চিত করে। যখন-তখন ছাঁটাই করে। জোর করে স্বাক্ষর রেখে প্রাপ্য পাওনা না দিয়ে কারখানা থেকে বের করে দেয়। অবসর নিলে বছরের পর বছর ঘুরাতে থাকে কিন্তু শ্রমিকের প্রাপ্য দেয় না। শ্রম আদালতে গেলেও ২/৪ বছরেও রায় পায় না।

তিনি বলেন, শ্রমিকরা ন্যূনতম মজুরি ১৮ হাজার টাকা দাবি করেছিল কিন্তু সরকার মাত্র ৮ হাজার টাকা ঘোষণা করেছে। বর্তমান বাজার দরের তুলনায় তা খুবই অপ্রতুল। তারপরেও অধিকাংশ কারখানায় তা মালিকরা দেয় না। ৩ নভেম্বর থেকে শিক্ষা নিয়ে আজকে শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি ও গণতান্ত্রিক শ্রম আইনের দাবিতে শক্তিশালী আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

Comments are closed.